ঢাকা ০১:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শাহমাহমুদপুরে পরাজিত হয়েও ভোটারদের কাছে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খোকন মল্লিক

মাসুদ হোসেন : ভোটে হেরেছি, তাই বলে কি হয়েছে। যারা ভোট দিয়েছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে ভুলে যাননি। তাই নির্বাচনের এক দিন পর থেকে আবার ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়েছেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল ইসলাম খোকন মল্লিক। তিনি আগামীতে সুখে-দু:খে, বিপদে-আপদে ইউনিয়নবাসীর পাশে থাকার অঙ্গীকার করছেন।
গত বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত শাহমাহমুদপুর ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল ইসলাম খোকন মল্লিক ২ হাজার ১৩১ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। কিন্ত ভোটে পরাজিত হলেও মনোবল হারাননি। বরং নির্বাচনের এক দিন পরেই ফের ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়ে উল্টো ভোটারদের শান্তনা দিচ্ছেন। পরামর্শ দিচ্ছেন মনোবল না হারাতে। প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন ইউনিয়নবাসীর ভোট আর নাগরিক অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত মাঠে থাকবেন।
খোকন মল্লিক ভোটের পরের দিন ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ভোটের পরে খোকন মল্লিকের এমন গণসংযোগে সাধারণ মানুষের মাঝে প্রশংসা কুড়িয়েছে। পাশাপাশি কর্মী-সমর্থকদের মনোবল বাড়িয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী খোকন মল্লিকের মতে, জনগণের ভোটে তিনি জিতেছেন, কিন্তু ‘ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে নিজেদের মনোনীত প্রার্থীকে জিতিয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। প্রশাসন বাইরে কঠোর নিরাপত্তা দেখালে ভিতরে কারচুপি করেছে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

ক্যাব চাঁদপুরের আয়োজনে বাজার পরিস্থিতি ও নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক মত বিনিময় সভা

শাহমাহমুদপুরে পরাজিত হয়েও ভোটারদের কাছে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খোকন মল্লিক

আপডেট সময় : ০৪:১৩:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ নভেম্বর ২০২১
মাসুদ হোসেন : ভোটে হেরেছি, তাই বলে কি হয়েছে। যারা ভোট দিয়েছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে ভুলে যাননি। তাই নির্বাচনের এক দিন পর থেকে আবার ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়েছেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল ইসলাম খোকন মল্লিক। তিনি আগামীতে সুখে-দু:খে, বিপদে-আপদে ইউনিয়নবাসীর পাশে থাকার অঙ্গীকার করছেন।
গত বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত শাহমাহমুদপুর ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল ইসলাম খোকন মল্লিক ২ হাজার ১৩১ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। কিন্ত ভোটে পরাজিত হলেও মনোবল হারাননি। বরং নির্বাচনের এক দিন পরেই ফের ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়ে উল্টো ভোটারদের শান্তনা দিচ্ছেন। পরামর্শ দিচ্ছেন মনোবল না হারাতে। প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন ইউনিয়নবাসীর ভোট আর নাগরিক অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত মাঠে থাকবেন।
খোকন মল্লিক ভোটের পরের দিন ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভোটারদের ঘরে ঘরে গিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ভোটের পরে খোকন মল্লিকের এমন গণসংযোগে সাধারণ মানুষের মাঝে প্রশংসা কুড়িয়েছে। পাশাপাশি কর্মী-সমর্থকদের মনোবল বাড়িয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী খোকন মল্লিকের মতে, জনগণের ভোটে তিনি জিতেছেন, কিন্তু ‘ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে নিজেদের মনোনীত প্রার্থীকে জিতিয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। প্রশাসন বাইরে কঠোর নিরাপত্তা দেখালে ভিতরে কারচুপি করেছে।