ঢাকা ১১:১৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুরে ইউপি নির্বাচনে নারী ভোটাদের উপস্থিত ছিল বেশি

চাঁদপুরের ইউপি নির্বাচনে নারী ভোটাদের উপস্থিতর ছিত্র। নারী ভোটাররা সুষ্ঠভাবে ভোট দিয়ে যেতে দেখা গেছে। ছবিটি মৈশাদী ইউনিয়নের বীর প্রতীক মমিন উল্ল্যাহ পাটওয়ারী একাডেমীর সামনে থেকে তোলা। - সজীব খান।

সজীব খান : দ্বিতীয় ধাপের ইউপি পরিষদ নির্বাচনে  চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউপিতে নারী ভোটারদের উপস্থিত ছিল বেশি। সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত।
চাঁদপুরের ৯ ইউনিয়নের প্রতিটি কেন্দ্রেই মেম্বার প্রার্থীগন তাদের বিজয়ের জন্য নারী ভোটারদের নিয়ে আসেন। প্রচন্ড তাপদাহের মধ্য দিয়ে ও নারী ভোটাররা কেন্দ্রে কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে তাদের ভোটারধীকার প্রয়োগ করেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ও নিরাপত্তার কোন তিল পরিমান কমতি ছিলনা। ভোটাররা যাতে নিবিঘ্নে ভোট দিতে পারে, তার জন্য পুলিশ, বিজিবি,  র‍্যাব, আনসার, গ্রাম পুলিশ জোরদার ছিল। কোথাও কোথাও হট্রগল দেখা দেওয়ার সাথে সাথেই প্রশাসন মাঠে নিয়ন্ত্রন নিয়ে আসে। কোন প্রকার পেশিশক্তি ছাড়াই নারী ভোটাররা ভোট দিয়েছে।
নির্বাচন নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনে শঙ্কা থাকলে ও সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনার অবাদ ও সুষ্ঠ নির্বাচনের ব্যবস্থা করেন, প্রতিটি কেন্দ্রেই পুরুষ ভোটারদের চেয়ে নারী ভোটারগনের উপস্থিতি ছিল বেশি। নারী ভোটাররা সুষ্ঠ ভাবে ভোট দিতে পেরে সরকার ও নির্বাচন কমিশনারদের ধন্যবাদ জানিয়েছে। তবে দুই একটি কেন্দ্রে মেম্বার প্রার্থীদের সমর্থকদের মাঝে দাওয়া পাল্টা দাওয়া হয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী অনেকে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রে পেশিশক্তি ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে, তবে দিন শেষে ভোটাররা ভোট দিতে পেরে আনন্দিত হয়েছে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুর শহরে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ালো অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন

চাঁদপুরে ইউপি নির্বাচনে নারী ভোটাদের উপস্থিত ছিল বেশি

আপডেট সময় : ০৪:৩৪:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর ২০২১
সজীব খান : দ্বিতীয় ধাপের ইউপি পরিষদ নির্বাচনে  চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউপিতে নারী ভোটারদের উপস্থিত ছিল বেশি। সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত।
চাঁদপুরের ৯ ইউনিয়নের প্রতিটি কেন্দ্রেই মেম্বার প্রার্থীগন তাদের বিজয়ের জন্য নারী ভোটারদের নিয়ে আসেন। প্রচন্ড তাপদাহের মধ্য দিয়ে ও নারী ভোটাররা কেন্দ্রে কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে তাদের ভোটারধীকার প্রয়োগ করেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ও নিরাপত্তার কোন তিল পরিমান কমতি ছিলনা। ভোটাররা যাতে নিবিঘ্নে ভোট দিতে পারে, তার জন্য পুলিশ, বিজিবি,  র‍্যাব, আনসার, গ্রাম পুলিশ জোরদার ছিল। কোথাও কোথাও হট্রগল দেখা দেওয়ার সাথে সাথেই প্রশাসন মাঠে নিয়ন্ত্রন নিয়ে আসে। কোন প্রকার পেশিশক্তি ছাড়াই নারী ভোটাররা ভোট দিয়েছে।
নির্বাচন নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনে শঙ্কা থাকলে ও সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনার অবাদ ও সুষ্ঠ নির্বাচনের ব্যবস্থা করেন, প্রতিটি কেন্দ্রেই পুরুষ ভোটারদের চেয়ে নারী ভোটারগনের উপস্থিতি ছিল বেশি। নারী ভোটাররা সুষ্ঠ ভাবে ভোট দিতে পেরে সরকার ও নির্বাচন কমিশনারদের ধন্যবাদ জানিয়েছে। তবে দুই একটি কেন্দ্রে মেম্বার প্রার্থীদের সমর্থকদের মাঝে দাওয়া পাল্টা দাওয়া হয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী অনেকে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রে পেশিশক্তি ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে, তবে দিন শেষে ভোটাররা ভোট দিতে পেরে আনন্দিত হয়েছে।