ঢাকা ১০:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মিধিলির প্রভাবে শাহরাস্তিতে গাছপালা ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে শাহরাস্তিতে দিনব্যাপী ভারী বৃষ্টি ও প্রচন্ড ঝড়ে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।
বৃহস্পতিবার থেকে শাহরাস্তি উপজেলায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়।
শুক্রবার সকাল থেকেই ভারী বৃষ্টি পাত শুরু হয় ও বেলা বাড়ার সাথে সাথে প্রচন্ড  জড়ো বাতাস বাড়তে থাকে।সালাতুল জুমুয়ার পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একাধারে ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডবে বহু গাছপালা ভেঙ্গে পড়ে,ঘর-বাড়ি টিনের চাল উল্টে পড়ে ও রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।
শাহরাস্তিতে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।
সন্ধ্যার পর মোবাইল নেটওয়ার্ক বিকল হয়ে পড়ে। ইন্টারনেট ব্যবহার কারীগন বিপাকে পড়ে। বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে গাছপালা ও ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির হয়েছে। এছাড়াও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বহুবার ফোন দিয়েও সংযোগ পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যার পর বাতাসের গতিবেগ ও বৃষ্টি কমে গেলে সাধারণ মানুষ ঘর থেকে বের হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত গাছপালা রাস্তার উপর থেকে সরাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।
এদিকে মেহার কালীবাড়িতে চলমান মেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অস্হায়ী দোকান পাট ঝড়ে উড়ে যায়। সাধারণ ব্যাবসায়ী গন ক্ষতির মুখে পড়েছে।
শাহরাস্তি রেলস্টেশনের পূর্ব পাশে আনন্দপুর গ্রামের মাঝখানে রেললাইনের উপর বড় আকারের একটি গাছ পড়ে থাকতে দেখা যায় এবং স্থানীয়রা রাস্তার উপর থেকে সরানোর চেষ্টা করছে।
উপজেলার পূর্বপ্রান্তের রায়শ্রী উত্তর ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে বসতবাড়ির চালাসহ রাস্তার উপর উপড়িয়ে পড়া গাছ-গাছালি পড়ে থাকতে দেখা যায়।অনেক জায়গায় বিদ্যুৎতের তার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে যায়।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর বিজয়ের গান গাইলেন সুনামগঞ্জের সাংবাদিক রাজু

মিধিলির প্রভাবে শাহরাস্তিতে গাছপালা ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

আপডেট সময় : ০৯:০৫:৫০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০২৩
ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে শাহরাস্তিতে দিনব্যাপী ভারী বৃষ্টি ও প্রচন্ড ঝড়ে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।
বৃহস্পতিবার থেকে শাহরাস্তি উপজেলায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়।
শুক্রবার সকাল থেকেই ভারী বৃষ্টি পাত শুরু হয় ও বেলা বাড়ার সাথে সাথে প্রচন্ড  জড়ো বাতাস বাড়তে থাকে।সালাতুল জুমুয়ার পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একাধারে ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডবে বহু গাছপালা ভেঙ্গে পড়ে,ঘর-বাড়ি টিনের চাল উল্টে পড়ে ও রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।
শাহরাস্তিতে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।
সন্ধ্যার পর মোবাইল নেটওয়ার্ক বিকল হয়ে পড়ে। ইন্টারনেট ব্যবহার কারীগন বিপাকে পড়ে। বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে গাছপালা ও ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির হয়েছে। এছাড়াও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বহুবার ফোন দিয়েও সংযোগ পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যার পর বাতাসের গতিবেগ ও বৃষ্টি কমে গেলে সাধারণ মানুষ ঘর থেকে বের হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত গাছপালা রাস্তার উপর থেকে সরাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।
এদিকে মেহার কালীবাড়িতে চলমান মেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অস্হায়ী দোকান পাট ঝড়ে উড়ে যায়। সাধারণ ব্যাবসায়ী গন ক্ষতির মুখে পড়েছে।
শাহরাস্তি রেলস্টেশনের পূর্ব পাশে আনন্দপুর গ্রামের মাঝখানে রেললাইনের উপর বড় আকারের একটি গাছ পড়ে থাকতে দেখা যায় এবং স্থানীয়রা রাস্তার উপর থেকে সরানোর চেষ্টা করছে।
উপজেলার পূর্বপ্রান্তের রায়শ্রী উত্তর ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে বসতবাড়ির চালাসহ রাস্তার উপর উপড়িয়ে পড়া গাছ-গাছালি পড়ে থাকতে দেখা যায়।অনেক জায়গায় বিদ্যুৎতের তার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে যায়।