ঢাকা ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্রামাঞ্চলের মানুষজনকে ‘লিগ্যাল এইড’ সম্পর্কে সচেতন করতে হবে; বিচারপতি এসএম জাহাঙ্গীর

মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রনি : “বিনা খরচে নিন আইনি সহায়তা, শেখ হাসিনা সরকার দিচ্ছেন এই নশ্চিয়তা’’ এ প্রতিপাদ্য বিষয়ে তৃনমূল পর্যায়ে আইনগত সহায়তা কার্যক্রম বিস্তার ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে হাইমচর উপজেলা ও ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটি এবং বিচার প্রার্থী জনসাধারনের অংশগ্রহনে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, হাইকোর্ট বিভাগ বিচারপতি ও লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ছোট্ট একটা বিষয় নিয়ে আমাদের দেশে যে মামলা মোকাদ্দামা হয়। সেটা তো পারিবারিক ভাবে সমাধান করা যায়, প্রতিহত করা যায়। তারা কেন আইন ভুলে ঝগড়া বিবাদ করবে।
এ জন্য মানুষজনকে সচেতন করতে হবে। অনেক সময় বলা হয় কোর্টের মাটিও কিন্তু টাকা খায়। জনগনকে  বুঝাতে হবে কোর্ট আদালত কোন ভাল জায়গা না। এজন্য গ্রাম অঞ্চলের মানুষদেরকে সচেতন করতে হবে যাতে মানুষ ঝগড়া বিবাদে লিপ্ত না হয়। এ হাইমচরের মানুষ অত্যান্ত অসহায়। ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টি ইউনিয়ন নদীর গর্ভে চলে গেছে। বাকি যারা আছেন কেযে কখন চলে যান তারই কোন ঠিক ঠিকানা নেই। কাজেই আপনারা সেচতন হোন। আসুন না আমরা নিরীহ মানুষজনের জন্য প্রচার করি। এ প্রচারের জন্য প্রশাসন যদি দ্বায়িত্ব নেন তাহলে আমরা অনেক দুর এগোতে পারবো।
এখনো গ্রামঅঞ্চলের মানুষ বুঝেনা লিগ্যাল এইড কি। লিগ্যাল এইডে কি হয়। লিগেল এইডে পৌছতে গিয়েও কিন্তু তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করা হয়। লিগ্যাল এইডে সরকারের টাকা দিয়ে অসহায় জনগন আইনগত সহযোগীতা পাবে।  এটা গ্রামঅঞ্চলের লোকজ জানে না। তাই আগে লিগ্যাল এইড সম্পর্কে গ্রামাঞ্চলের মানুষজনকে সচেতন করতে হবে। তিনি জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা কিন্তু মরণশীল, আমাদের সবাইকে মরে যেতে হবে। কেউ কিন্তু চ্যালেঞ্জ করে বেঁচে থাকতে পারববে না। মানুষ মরণশীল মানুষের কর্মটাই দুনিয়াতে থেকে যায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশের জন্য সেক্রিপাইজ করেছেন। বঙ্গবন্ধু তার জীবদ্দশায় এদেশের মানুষজনের জন্য কাজ করে গেছেন। তাই আজও দেশে, গ্রামে, শহরে এবংকি আন্তর্জাতিক ভাবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রশারিত হচ্ছে। আশাকরি আপনারা যারা জনপ্রতিনিধি আছেন আপনারা নিরীহ মানুষজনের বিনামূল্যে, বিনা স্বার্থে সহযোগীতা করবেন।
সোমবার বিকেল ৪টায় উপজেলা পরিষদ সম্মুখে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে ও জেলা সিনিয়র যুগ্ম জজ সাকিব হোসেন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার চাই থোয়াইহলা চৌধুরীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, জেলা ও দায়রা জজ এসএম জিয়াউর রহমান, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামরুল হাসান, বিচারক  জেলা জজ)জান্নাতুল ফেরদাউস চৌধুরী, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজবেগম ফারহানা ইসলাম, বিজ্ঞ জিপি আব্দুর রহমান, জেলা আইনজীবি  সমিতি সভাপতি এডভোকেট মো. কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহনাজ বেগম, আলগী দূর্গাপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান পাটওয়ারীপ্রমুখ।
এসময় উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী, হাইমচর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আশরাফ উদ্দিনসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বানভাসির পাশে এমপি রনজিত সরকার

গ্রামাঞ্চলের মানুষজনকে ‘লিগ্যাল এইড’ সম্পর্কে সচেতন করতে হবে; বিচারপতি এসএম জাহাঙ্গীর

আপডেট সময় : ০৬:৪৬:৩৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২
মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রনি : “বিনা খরচে নিন আইনি সহায়তা, শেখ হাসিনা সরকার দিচ্ছেন এই নশ্চিয়তা’’ এ প্রতিপাদ্য বিষয়ে তৃনমূল পর্যায়ে আইনগত সহায়তা কার্যক্রম বিস্তার ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে হাইমচর উপজেলা ও ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটি এবং বিচার প্রার্থী জনসাধারনের অংশগ্রহনে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, হাইকোর্ট বিভাগ বিচারপতি ও লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ছোট্ট একটা বিষয় নিয়ে আমাদের দেশে যে মামলা মোকাদ্দামা হয়। সেটা তো পারিবারিক ভাবে সমাধান করা যায়, প্রতিহত করা যায়। তারা কেন আইন ভুলে ঝগড়া বিবাদ করবে।
এ জন্য মানুষজনকে সচেতন করতে হবে। অনেক সময় বলা হয় কোর্টের মাটিও কিন্তু টাকা খায়। জনগনকে  বুঝাতে হবে কোর্ট আদালত কোন ভাল জায়গা না। এজন্য গ্রাম অঞ্চলের মানুষদেরকে সচেতন করতে হবে যাতে মানুষ ঝগড়া বিবাদে লিপ্ত না হয়। এ হাইমচরের মানুষ অত্যান্ত অসহায়। ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টি ইউনিয়ন নদীর গর্ভে চলে গেছে। বাকি যারা আছেন কেযে কখন চলে যান তারই কোন ঠিক ঠিকানা নেই। কাজেই আপনারা সেচতন হোন। আসুন না আমরা নিরীহ মানুষজনের জন্য প্রচার করি। এ প্রচারের জন্য প্রশাসন যদি দ্বায়িত্ব নেন তাহলে আমরা অনেক দুর এগোতে পারবো।
এখনো গ্রামঅঞ্চলের মানুষ বুঝেনা লিগ্যাল এইড কি। লিগ্যাল এইডে কি হয়। লিগেল এইডে পৌছতে গিয়েও কিন্তু তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করা হয়। লিগ্যাল এইডে সরকারের টাকা দিয়ে অসহায় জনগন আইনগত সহযোগীতা পাবে।  এটা গ্রামঅঞ্চলের লোকজ জানে না। তাই আগে লিগ্যাল এইড সম্পর্কে গ্রামাঞ্চলের মানুষজনকে সচেতন করতে হবে। তিনি জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা কিন্তু মরণশীল, আমাদের সবাইকে মরে যেতে হবে। কেউ কিন্তু চ্যালেঞ্জ করে বেঁচে থাকতে পারববে না। মানুষ মরণশীল মানুষের কর্মটাই দুনিয়াতে থেকে যায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশের জন্য সেক্রিপাইজ করেছেন। বঙ্গবন্ধু তার জীবদ্দশায় এদেশের মানুষজনের জন্য কাজ করে গেছেন। তাই আজও দেশে, গ্রামে, শহরে এবংকি আন্তর্জাতিক ভাবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রশারিত হচ্ছে। আশাকরি আপনারা যারা জনপ্রতিনিধি আছেন আপনারা নিরীহ মানুষজনের বিনামূল্যে, বিনা স্বার্থে সহযোগীতা করবেন।
সোমবার বিকেল ৪টায় উপজেলা পরিষদ সম্মুখে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে ও জেলা সিনিয়র যুগ্ম জজ সাকিব হোসেন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার চাই থোয়াইহলা চৌধুরীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, জেলা ও দায়রা জজ এসএম জিয়াউর রহমান, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামরুল হাসান, বিচারক  জেলা জজ)জান্নাতুল ফেরদাউস চৌধুরী, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজবেগম ফারহানা ইসলাম, বিজ্ঞ জিপি আব্দুর রহমান, জেলা আইনজীবি  সমিতি সভাপতি এডভোকেট মো. কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহনাজ বেগম, আলগী দূর্গাপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান পাটওয়ারীপ্রমুখ।
এসময় উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী, হাইমচর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আশরাফ উদ্দিনসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।