ঢাকা ০৪:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মতলব উত্তরে বাড়ছে চোরের উপদ্রব, অতিষ্ট সাধারণ মানুষ

মতলব উত্তর ব্যুরো : মতলব উত্তর উপজেলায় বাড়ছে চোরের উপদ্রব। ২৪ ফেব্রুয়ারী রাতে উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের আবুল কাসেমের ঘরে সিদঁ কেটে চুরি করে। তার ঘর থেকে একটি মোবাইল চুরি করে নিয়ে যায়।

Model Hospital

আবুল কাশেম জানান, চুরি হওয়ার মাত্র ৩ দিন আগে ২৬ হাজার টাকা দিয়ে একটি মোবাইল কিনেন। ৩ দিন পর সিদঁ কেটে সেই মোবাইলটি চুরি করে নেয়।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে ব্রাহ্মণচক গ্রামের ইসমাইল হোসেন দিপুর ঘরেও চুরি হয়েছে। ঘর মালিক দিপু জানান, আমার ঘর থেকে এলইডি টিভি ও অন্যান্য মালামাল চুরি হয়।

এর আগে ২৫ জানুয়ারী গভীর রাতে উপজেলার ব্রাহ্মণচক বাবুর আলী মার্কেটের হেলাল প্রধানের দোকানে চুরি হয়। দোকান মালিক হেলাল প্রধান জানান, চোরেরা আমার দোকানের তালা ভেঙ্গে নগদ অর্থ, সিগারেট, বিস্কুটসহ অন্যান্য মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। এর আগেও বাবুর আলী মার্কেটের মুদি দোকানদার মোহন তালুকদারের দোকানে চুরি হয়েছে।

মোহন তালুকদার জানান, একাধিকবার আমার দোকানে চুরি হয়েছে। নগদ অর্থ, সিগারেট ও দামি মালামাল চুরি করেছে চোরেরা। একই মার্কেটের ইভা স্টোরেও একাদিকবার চুরি হয়েছে।

ইভা স্টোরের মালিক ইকবাল হোসেন জানান, একাধিকবার চুরি করে আমাকে নিঃস্ব করেছে। আমার দোকানের চালের উপরের টিন কেটে দোকানে প্রবেশ করে। এতে আমার প্রায় ২০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন পেশার লোকজনদের সাথে কথা হলে তারা জানান, এদিক সেদিক কেবল চুরির ঘটনার খবর পাই। আমরা আতংকে আছি। কোন সময় জানি স্বর্বস্ব চুরি করে নেয়।

মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল, চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধ দমনের জন্য রাতের বেলায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

ক্যাব চাঁদপুরের আয়োজনে বাজার পরিস্থিতি ও নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক মত বিনিময় সভা

মতলব উত্তরে বাড়ছে চোরের উপদ্রব, অতিষ্ট সাধারণ মানুষ

আপডেট সময় : ০১:৫৫:৫১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২

মতলব উত্তর ব্যুরো : মতলব উত্তর উপজেলায় বাড়ছে চোরের উপদ্রব। ২৪ ফেব্রুয়ারী রাতে উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের আবুল কাসেমের ঘরে সিদঁ কেটে চুরি করে। তার ঘর থেকে একটি মোবাইল চুরি করে নিয়ে যায়।

Model Hospital

আবুল কাশেম জানান, চুরি হওয়ার মাত্র ৩ দিন আগে ২৬ হাজার টাকা দিয়ে একটি মোবাইল কিনেন। ৩ দিন পর সিদঁ কেটে সেই মোবাইলটি চুরি করে নেয়।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে ব্রাহ্মণচক গ্রামের ইসমাইল হোসেন দিপুর ঘরেও চুরি হয়েছে। ঘর মালিক দিপু জানান, আমার ঘর থেকে এলইডি টিভি ও অন্যান্য মালামাল চুরি হয়।

এর আগে ২৫ জানুয়ারী গভীর রাতে উপজেলার ব্রাহ্মণচক বাবুর আলী মার্কেটের হেলাল প্রধানের দোকানে চুরি হয়। দোকান মালিক হেলাল প্রধান জানান, চোরেরা আমার দোকানের তালা ভেঙ্গে নগদ অর্থ, সিগারেট, বিস্কুটসহ অন্যান্য মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। এর আগেও বাবুর আলী মার্কেটের মুদি দোকানদার মোহন তালুকদারের দোকানে চুরি হয়েছে।

মোহন তালুকদার জানান, একাধিকবার আমার দোকানে চুরি হয়েছে। নগদ অর্থ, সিগারেট ও দামি মালামাল চুরি করেছে চোরেরা। একই মার্কেটের ইভা স্টোরেও একাদিকবার চুরি হয়েছে।

ইভা স্টোরের মালিক ইকবাল হোসেন জানান, একাধিকবার চুরি করে আমাকে নিঃস্ব করেছে। আমার দোকানের চালের উপরের টিন কেটে দোকানে প্রবেশ করে। এতে আমার প্রায় ২০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন পেশার লোকজনদের সাথে কথা হলে তারা জানান, এদিক সেদিক কেবল চুরির ঘটনার খবর পাই। আমরা আতংকে আছি। কোন সময় জানি স্বর্বস্ব চুরি করে নেয়।

মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল, চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধ দমনের জন্য রাতের বেলায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।