ঢাকা ১১:১০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুর প্রফেসর পাড়ায় ভূমী বিরোধে একই পরিবারের আহত- ৩

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর শহরের প্রফেসর পাড়া এলাকার গাজী বাড়িতে ভূমী সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হানিফ গাজীর পুত্র জাহিদ গাজী ও তার ভাই মানিক গাজী এবং মানিক গাজীর স্ত্রী হাজরাকে দেশীয় অস্ত্র দ্বারা অতর্কিত হামলা করে মারাত্বক জখম করেছেন একই বাড়ির রাজ্জাক গাজীর পুত্র মারুফ গাজী ও সিরাজ গাজীর পুত্র পগু গাজী ও ইয়াছিন গাজীসহ হেলাল গাজী, বিল্লাল গাজী ও রাজ্জাক গাজী এবং প্রায় ২০-৩০ জন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক।

Model Hospital

অভিযোগকারী হানিফ গাজী জানায়, রাজ্জাক গাজীর সাথে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে।

এ বিষয়ে চাঁদপুর বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা চলমান রয়েছে। উক্ত মামলার প্রেক্ষিতে সত্রুতার জের ধরে রাজ্জাক গাজী তার বিভিন্ন লোকজন দিয়ে আমাদেরকে প্রায় সময়ই অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে আসছে। এমনকি আমাদেরকে ভয়ভিতি প্রদর্শন সহ প্রাণ নাশের হুমকীও প্রদান করে আসছে।

এ বিষয়টি নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজ্জাক গাজীর পুত্র মারুফ গাজী ও সিরাজ গাজীর পুত্র পগু গাজী, ইয়াছিন গাজী, ফজলুর রহমানের পুত্র মুসা গাজী, সিরাজ গাজী, রাজ্জাক গাজী এবং মান্নান গাজীর পুত্র হেলাল গাজী, বিল্লাল গাজী এবং সিরাজ গাজীর পুত্র তাহিদ গাজীসহ প্রায় ২০-৩০ জন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক এনে আমাদের বসত ঘরের সামনে এসে আমাদেরকে ঘর থেকে বের হতে বলে এবং আমাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ শুরু করে।

এসময় আমার পুত্র জাহিদ গাজী এগিয়ে গেলে তাকে দেশীয় অস্ত্র দ্বারা এলোপাতরি মারধর করতে শুরু করে। তার ডাক চিৎকারে আমার ভাই মানিক গাজী ও তার স্ত্রী হাজরা এগিয়ে গেলে তাদেরকেও দেশীয় অস্ত্র দ্বারা শরীর বিভিন্ন জায়গায় জখম করে। এমনকি হাজরা বেগমের পেটে ছুরিকাঘাত করে সন্ত্রাসীরা। এ সময় তাদের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। তখন এলাকাবাসী আহতদেরকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করায়।

বর্তমানে তাদের অবস্থা খুবই আসঙ্খা জনক। এ সন্ত্রাসীরা ইতিপূর্বেও বেশ কয়েকবার আমার পরিবারের উপর হামলা চালিয়েছে। এরা এলাকার ভূমীদস্যুতাসহ সকল অপকর্মের সাথে জড়িত। উক্ত বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সু-বিচার কামনা করছি।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরের তিন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা কে কত ভোট পেলেন

চাঁদপুর প্রফেসর পাড়ায় ভূমী বিরোধে একই পরিবারের আহত- ৩

আপডেট সময় : ০৪:৩৫:৩১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারী ২০২২

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর শহরের প্রফেসর পাড়া এলাকার গাজী বাড়িতে ভূমী সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হানিফ গাজীর পুত্র জাহিদ গাজী ও তার ভাই মানিক গাজী এবং মানিক গাজীর স্ত্রী হাজরাকে দেশীয় অস্ত্র দ্বারা অতর্কিত হামলা করে মারাত্বক জখম করেছেন একই বাড়ির রাজ্জাক গাজীর পুত্র মারুফ গাজী ও সিরাজ গাজীর পুত্র পগু গাজী ও ইয়াছিন গাজীসহ হেলাল গাজী, বিল্লাল গাজী ও রাজ্জাক গাজী এবং প্রায় ২০-৩০ জন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক।

Model Hospital

অভিযোগকারী হানিফ গাজী জানায়, রাজ্জাক গাজীর সাথে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে।

এ বিষয়ে চাঁদপুর বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা চলমান রয়েছে। উক্ত মামলার প্রেক্ষিতে সত্রুতার জের ধরে রাজ্জাক গাজী তার বিভিন্ন লোকজন দিয়ে আমাদেরকে প্রায় সময়ই অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে আসছে। এমনকি আমাদেরকে ভয়ভিতি প্রদর্শন সহ প্রাণ নাশের হুমকীও প্রদান করে আসছে।

এ বিষয়টি নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজ্জাক গাজীর পুত্র মারুফ গাজী ও সিরাজ গাজীর পুত্র পগু গাজী, ইয়াছিন গাজী, ফজলুর রহমানের পুত্র মুসা গাজী, সিরাজ গাজী, রাজ্জাক গাজী এবং মান্নান গাজীর পুত্র হেলাল গাজী, বিল্লাল গাজী এবং সিরাজ গাজীর পুত্র তাহিদ গাজীসহ প্রায় ২০-৩০ জন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক এনে আমাদের বসত ঘরের সামনে এসে আমাদেরকে ঘর থেকে বের হতে বলে এবং আমাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ শুরু করে।

এসময় আমার পুত্র জাহিদ গাজী এগিয়ে গেলে তাকে দেশীয় অস্ত্র দ্বারা এলোপাতরি মারধর করতে শুরু করে। তার ডাক চিৎকারে আমার ভাই মানিক গাজী ও তার স্ত্রী হাজরা এগিয়ে গেলে তাদেরকেও দেশীয় অস্ত্র দ্বারা শরীর বিভিন্ন জায়গায় জখম করে। এমনকি হাজরা বেগমের পেটে ছুরিকাঘাত করে সন্ত্রাসীরা। এ সময় তাদের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। তখন এলাকাবাসী আহতদেরকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করায়।

বর্তমানে তাদের অবস্থা খুবই আসঙ্খা জনক। এ সন্ত্রাসীরা ইতিপূর্বেও বেশ কয়েকবার আমার পরিবারের উপর হামলা চালিয়েছে। এরা এলাকার ভূমীদস্যুতাসহ সকল অপকর্মের সাথে জড়িত। উক্ত বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সু-বিচার কামনা করছি।