ঢাকা ০২:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
চাঁদপুরে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি বলেছেন

বাজার থেকে খাবার ক্রয় বা সংগ্রহের সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি বলেছেন নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা দরকার। এ জন্য খাদ্য উৎপাদনকারী ছোট বড় সকল প্রতিষ্ঠানে গিয়ে তাদেরকে অবহিত করতে হবে। নিরাপদ খাদ্য সকলের ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরী। এ খাদ্যকে স্বাভাবিক এবং ভেজাল ও অন্যান্য দূষণ থেকে নিরাপদ অবস্থায় বিতরণ এখন সময়ের ব্যাপার।
শনিবার (৬ জুলাই) সকালে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ আয়োজনে জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক জনসচেতনতামূলক কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন
মন্ত্রী বলেন, বাজার থেকে খাবার ক্রয় বা সংগ্রহের সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। পরিষ্কার, পরিছন্নতা, কাঁচা খাবার, রান্না করা খাবার থেকে আলাদা রাখাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ওপর নানা সচেতনতা মূলক বার্তা তুলে ধরেন।
কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি ছাড়াও নানা কারণে খাদ্য দূষিত হতে পারে। খাদ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, পরিবহণ, খাদ্যগ্রহণ প্রক্রিয়ার যে কোন পর্যায়ে শিল্পায়িত খাদ্য খাদ্যের অনুপযোগী হয়ে যেতে পারে। খাদ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে ভোক্তার দ্বার পর্যন্ত খাদ্যের গুণগত মান নিশ্চিত রাখা সরকারি ও বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব। নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তর, ভোক্তা অধিদপ্তর, সিভিল সার্জনসহ সবাইকে এ বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। প্রয়োজনে আরো জনসচেতনতা বাড়াতে হবে এবং অভিযান চলমান রাখতে হবে। স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। যদি সুস্থ না থাকা যায় তাহলে ধনসম্পদ টাকা-পয়সা থেকেও কোন সুখ-শান্তি পাওয়া যায় না। তাই সর্বপ্রথম আমাদের নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থার প্রয়োজন। আমরা শারীরিক টর্চার ও নিরাপদ খাদ্যের মাধ্যমে সুস্থভাবে জীবন যাপন করতে পারি। আমাদের সুস্থতার ক্ষেত্রে খাদ্য অভ্যাসটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এজন্য আমাদের সকলের নিরাপদ খাদ্যটা চাই।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিনি নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টি অনুধাবন করে স্কুল লেভেলের পাঠ্যপুস্তকেও নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টিঅন্তর্ভুক্ত করেছেন। আজ থেকে আপনাদের সকলের নিজ নিজ কর্মস্থল থেকে নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম নিজ দায়িত্বে সম্পূর্ণ করবেন। তাহলে আজকের এই নিরাপদ খাদ্য বিষয় জনের সচেতনতামূলক কর্মশালা সার্থক ও সফল হবে।
তিনি আরো বলেন, যেকোনো অপরাধের জন্য বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে শাস্তির বিধান আছে। কিন্তু খাদ্যে ভেজাল মিশালে কি ধরনের শাস্তি বিধান ও ধারা আছে সে বিষয়গুলো প্রচার করতে হবে। তাহলে ব্যবসায়ীও ভোক্তা দুজনই নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে সচেতন হবেন।
চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম (বার)।
এসময় বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন, হাইমচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী, রামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারী, ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাশেম খান, হাইমচর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন সবুজ, কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান দর্জি প্রমুখ।
বিষয়ভিত্তিক সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম।
জনসচেতনতামূলক কর্মসূচিতে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাখাওয়াত জামিল সৈকত, জেলা কারাগারের জেল সুপার মোহাম্মদ ফোরকান ওয়াহিদ, সদর উপজেলার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, চাঁদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, গণমাধ্যম কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন, সংরক্ষণ, বিপণনের বিভিন্ন পদ্ধতি ও নিরাপদ খাদ্য আইন বিষয়ক আলোচনা করা হয়।
ট্যাগস :

শাহরাস্তিতে মাদক মামলায় যুবক আটক

চাঁদপুরে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি বলেছেন

বাজার থেকে খাবার ক্রয় বা সংগ্রহের সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে

আপডেট সময় : ১০:৩৩:৪৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০২৪
সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি বলেছেন নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা দরকার। এ জন্য খাদ্য উৎপাদনকারী ছোট বড় সকল প্রতিষ্ঠানে গিয়ে তাদেরকে অবহিত করতে হবে। নিরাপদ খাদ্য সকলের ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরী। এ খাদ্যকে স্বাভাবিক এবং ভেজাল ও অন্যান্য দূষণ থেকে নিরাপদ অবস্থায় বিতরণ এখন সময়ের ব্যাপার।
শনিবার (৬ জুলাই) সকালে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ আয়োজনে জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক জনসচেতনতামূলক কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন
মন্ত্রী বলেন, বাজার থেকে খাবার ক্রয় বা সংগ্রহের সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। পরিষ্কার, পরিছন্নতা, কাঁচা খাবার, রান্না করা খাবার থেকে আলাদা রাখাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ওপর নানা সচেতনতা মূলক বার্তা তুলে ধরেন।
কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি ছাড়াও নানা কারণে খাদ্য দূষিত হতে পারে। খাদ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, পরিবহণ, খাদ্যগ্রহণ প্রক্রিয়ার যে কোন পর্যায়ে শিল্পায়িত খাদ্য খাদ্যের অনুপযোগী হয়ে যেতে পারে। খাদ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে ভোক্তার দ্বার পর্যন্ত খাদ্যের গুণগত মান নিশ্চিত রাখা সরকারি ও বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব। নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তর, ভোক্তা অধিদপ্তর, সিভিল সার্জনসহ সবাইকে এ বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। প্রয়োজনে আরো জনসচেতনতা বাড়াতে হবে এবং অভিযান চলমান রাখতে হবে। স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। যদি সুস্থ না থাকা যায় তাহলে ধনসম্পদ টাকা-পয়সা থেকেও কোন সুখ-শান্তি পাওয়া যায় না। তাই সর্বপ্রথম আমাদের নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থার প্রয়োজন। আমরা শারীরিক টর্চার ও নিরাপদ খাদ্যের মাধ্যমে সুস্থভাবে জীবন যাপন করতে পারি। আমাদের সুস্থতার ক্ষেত্রে খাদ্য অভ্যাসটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এজন্য আমাদের সকলের নিরাপদ খাদ্যটা চাই।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিনি নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টি অনুধাবন করে স্কুল লেভেলের পাঠ্যপুস্তকেও নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টিঅন্তর্ভুক্ত করেছেন। আজ থেকে আপনাদের সকলের নিজ নিজ কর্মস্থল থেকে নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম নিজ দায়িত্বে সম্পূর্ণ করবেন। তাহলে আজকের এই নিরাপদ খাদ্য বিষয় জনের সচেতনতামূলক কর্মশালা সার্থক ও সফল হবে।
তিনি আরো বলেন, যেকোনো অপরাধের জন্য বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে শাস্তির বিধান আছে। কিন্তু খাদ্যে ভেজাল মিশালে কি ধরনের শাস্তি বিধান ও ধারা আছে সে বিষয়গুলো প্রচার করতে হবে। তাহলে ব্যবসায়ীও ভোক্তা দুজনই নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে সচেতন হবেন।
চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম (বার)।
এসময় বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন, হাইমচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী, রামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারী, ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাশেম খান, হাইমচর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন সবুজ, কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান দর্জি প্রমুখ।
বিষয়ভিত্তিক সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম।
জনসচেতনতামূলক কর্মসূচিতে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাখাওয়াত জামিল সৈকত, জেলা কারাগারের জেল সুপার মোহাম্মদ ফোরকান ওয়াহিদ, সদর উপজেলার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, চাঁদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, গণমাধ্যম কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন, সংরক্ষণ, বিপণনের বিভিন্ন পদ্ধতি ও নিরাপদ খাদ্য আইন বিষয়ক আলোচনা করা হয়।