ঢাকা ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিত বাড়াতে প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

কচুয়ায় নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই

কচুয়ায় তিনভাগে বিভক্ত আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব ঘিরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জয় পরাজয় নির্ধারন হবে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপেও ভোটারদের উপস্থিত ছিল কম। তবে সেখানে পুরুষের তুলনায় নারী ভোটারদের উপস্থিত ছিল বেশি। তৃতীয় ধাপে ও কচুয়ায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। ঘূর্নিঝড় রেমালের কারনে নির্বাচন স্থগিত হয়।

Model Hospital

আগামী ৫ ই জুন নির্বাচনে পুনরায় তারিখ ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন (ইসি)। চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান ১৫ জন পদপ্রার্থী নির্বাচনী এলাকায় ভোট চেয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। জেলার সকল মানুষের আগ্রহ এখন এই কচুয়া উপজেলার দিকে। ভোটারদের পাশাপাশি জেলা ও উপজেলার নানান রাজনৈতিক নেতাকর্র্মীরা নির্বাচনের ফলাফলের হিসাব নিকাশ করছেন। মাঠ জরিপে এগিয়ে রাখছেন তাদের পছন্দের প্রার্থীদের। স্থানীয় এমপি বনাম এমপি বিরোধী দুই পক্ষের পছন্দের প্রার্থীদের নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন তাদের সমর্থিত নেতাকর্মীরা।

চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী, আওয়ামী লীগ নেতা ফয়েজ আহমেদ স্বপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ ও জাতীয় পার্টির কচুয়া উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দিন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, উপজেলা যুব লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদীকা ফারহানা পারভীন, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা সহিদ, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান কুলসুমা আক্তার, চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের সদস্য জ্যোৎস্না আক্তার, সাবেক ইউপি সদস্য আমেনা আক্তার, উপজেলা যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি শ্যামলী খান। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- উপজেলা যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল প্রধান জালাল, ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক মো. রাকিবুল হাসান, কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ আ. জব্বার বাহার।

কচুয়া উপজেলার বর্তমান সাংসদ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদের পছন্দের প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে তিনজন তারা হলেন- বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম (টেলিফোন), উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী (দোয়াত কলম), উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ (ঘোড়া)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের সদস্য জ্যোৎস্না আক্তার (ফুটবল)। ভাইস চেয়ারম্যান ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক মো. রাকিবুল হাসান (তালা)। তাদের পক্ষে এমপির অনুসারী নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নির্বাচনী মাঠে কাজ করছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে, বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির (কাপ পিরিজ), মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা যুব লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ফারহানা পারভীন (প্রজাপতি), ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল প্রধান জালাল ও কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ আ. জব্বার বাহার। তাদের পক্ষে সাবেক এমপি ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ¦ গোলাম হোসেন (এনবিআর) কাজ করছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।

অন্যদিকে গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ফয়েজ আহমেদ স্বপন আনারস প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী শাহজাহান শিশিরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

এ নির্বাচনেও তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তার কর্মী সমর্থকরা মনে করছেন সকলকে চমক দিয়ে ফয়েজ আহমেদ স্বপনই হবে কচুয়া উপজেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান। জাতীয় পার্টির প্রার্থী অ্যাড. মাঈনউদ্দিন লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ঢিলেঢালা ভাবে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার কর্মী সমর্থকরা মনে করছেন, যেহেতু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ৫জন প্রার্থী অপরদিকে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী হওয়ায় সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে আমরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হবো।

তাই ভোটারদের পাশাপাশি রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, চেয়ারম্যান পদে এমপি বিরোধী প্রার্থী শিশির বনাম এমপির পছন্দের তিন প্রার্থী মাহবুব আলম (টেলিফোন), আইয়ুব আলী পাটোয়ারী (দোয়াত কলম), সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ (ঘোড়া) মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। ভোট গ্রহণের দিন ৫ জুন জানা যাবে কে হচ্ছেন কচুয়া উপজেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান।

৫ জুন নির্বাচনকে ঘিরে মানুষের মধ্যে যে আগ্রহ উৎসাহ তৈরি করেছে সেটা ধরে রাখতে অবাদ সুষ্ঠু নির্বাচন দাবী করছেন প্রার্থীসহ স্থানীয় ভোটাররা। সেটা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন জেলা প্রশাসক ও উপজেলা প্রশাসক, নির্বাচনে দায়িত্বপাপ্ত রিটানিং কর্মকর্তারা।

এখন দেখার বিষয় ভোটের দিনের নির্বাচনী পরিবেশ কতটা উৎসব মুখর হবে?
উপজেলা নির্বাচন সূত্র মতে, ৫ জুন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কচুয়ায় ইভিএমএ পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৩০ হাজার ৫শত ২৫জন। তন্মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৭২ হাজার ৫শত ৪৬জন। মহিলা ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৭হাজার ৯শত ৭৮জন। ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ১১০টি কেন্দ্র ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে মাদরাসাতু মুহাম্মদ সাঃ উদ্বোধন

ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিত বাড়াতে প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

কচুয়ায় নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই

আপডেট সময় : ০৪:০১:৩৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪

কচুয়ায় তিনভাগে বিভক্ত আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব ঘিরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জয় পরাজয় নির্ধারন হবে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপেও ভোটারদের উপস্থিত ছিল কম। তবে সেখানে পুরুষের তুলনায় নারী ভোটারদের উপস্থিত ছিল বেশি। তৃতীয় ধাপে ও কচুয়ায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। ঘূর্নিঝড় রেমালের কারনে নির্বাচন স্থগিত হয়।

Model Hospital

আগামী ৫ ই জুন নির্বাচনে পুনরায় তারিখ ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন (ইসি)। চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান ১৫ জন পদপ্রার্থী নির্বাচনী এলাকায় ভোট চেয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। জেলার সকল মানুষের আগ্রহ এখন এই কচুয়া উপজেলার দিকে। ভোটারদের পাশাপাশি জেলা ও উপজেলার নানান রাজনৈতিক নেতাকর্র্মীরা নির্বাচনের ফলাফলের হিসাব নিকাশ করছেন। মাঠ জরিপে এগিয়ে রাখছেন তাদের পছন্দের প্রার্থীদের। স্থানীয় এমপি বনাম এমপি বিরোধী দুই পক্ষের পছন্দের প্রার্থীদের নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন তাদের সমর্থিত নেতাকর্মীরা।

চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী, আওয়ামী লীগ নেতা ফয়েজ আহমেদ স্বপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ ও জাতীয় পার্টির কচুয়া উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দিন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, উপজেলা যুব লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদীকা ফারহানা পারভীন, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা সহিদ, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান কুলসুমা আক্তার, চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের সদস্য জ্যোৎস্না আক্তার, সাবেক ইউপি সদস্য আমেনা আক্তার, উপজেলা যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি শ্যামলী খান। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- উপজেলা যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল প্রধান জালাল, ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক মো. রাকিবুল হাসান, কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ আ. জব্বার বাহার।

কচুয়া উপজেলার বর্তমান সাংসদ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদের পছন্দের প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে তিনজন তারা হলেন- বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম (টেলিফোন), উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী (দোয়াত কলম), উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ (ঘোড়া)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের সদস্য জ্যোৎস্না আক্তার (ফুটবল)। ভাইস চেয়ারম্যান ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক মো. রাকিবুল হাসান (তালা)। তাদের পক্ষে এমপির অনুসারী নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নির্বাচনী মাঠে কাজ করছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে, বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির (কাপ পিরিজ), মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা যুব লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ফারহানা পারভীন (প্রজাপতি), ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল প্রধান জালাল ও কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ আ. জব্বার বাহার। তাদের পক্ষে সাবেক এমপি ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ¦ গোলাম হোসেন (এনবিআর) কাজ করছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।

অন্যদিকে গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ফয়েজ আহমেদ স্বপন আনারস প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী শাহজাহান শিশিরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

এ নির্বাচনেও তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তার কর্মী সমর্থকরা মনে করছেন সকলকে চমক দিয়ে ফয়েজ আহমেদ স্বপনই হবে কচুয়া উপজেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান। জাতীয় পার্টির প্রার্থী অ্যাড. মাঈনউদ্দিন লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ঢিলেঢালা ভাবে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার কর্মী সমর্থকরা মনে করছেন, যেহেতু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ৫জন প্রার্থী অপরদিকে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী হওয়ায় সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে আমরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হবো।

তাই ভোটারদের পাশাপাশি রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, চেয়ারম্যান পদে এমপি বিরোধী প্রার্থী শিশির বনাম এমপির পছন্দের তিন প্রার্থী মাহবুব আলম (টেলিফোন), আইয়ুব আলী পাটোয়ারী (দোয়াত কলম), সোহবার হোসেন চৌধুরী সোহাগ (ঘোড়া) মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। ভোট গ্রহণের দিন ৫ জুন জানা যাবে কে হচ্ছেন কচুয়া উপজেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান।

৫ জুন নির্বাচনকে ঘিরে মানুষের মধ্যে যে আগ্রহ উৎসাহ তৈরি করেছে সেটা ধরে রাখতে অবাদ সুষ্ঠু নির্বাচন দাবী করছেন প্রার্থীসহ স্থানীয় ভোটাররা। সেটা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন জেলা প্রশাসক ও উপজেলা প্রশাসক, নির্বাচনে দায়িত্বপাপ্ত রিটানিং কর্মকর্তারা।

এখন দেখার বিষয় ভোটের দিনের নির্বাচনী পরিবেশ কতটা উৎসব মুখর হবে?
উপজেলা নির্বাচন সূত্র মতে, ৫ জুন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কচুয়ায় ইভিএমএ পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৩০ হাজার ৫শত ২৫জন। তন্মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৭২ হাজার ৫শত ৪৬জন। মহিলা ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৭হাজার ৯শত ৭৮জন। ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ১১০টি কেন্দ্র ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে।